জলবায়ু পরিবর্তনের কারনেই কি প্রাণীরোগে সংক্রমিত হচ্ছে মানুষ? জেনে নিন বিশেষজ্ঞদের মতামত

ছবি-প্রতীকী
This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

শান্তি রায়চৌধুরী :  জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে কোথাও বরফ গলছে, আবার ভূ-পৃষ্ঠের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে আবহাওয়া ও জলবায়ুর তারতম্য বাড়ছে রোগব্যাধি। আমাদের শরীরে যেসব রোগব্যাধি দেখা দিচ্ছে তার অধিকাংশই আসছে প্রাণিদেহ থেকে। এমনটাই জানিয়েছেন মৎস্য, ডেইরি ও পোলট্রি সেক্টর সংশ্লিষ্ট প্রাণী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

 

This news is sponsored by STP Tax Consultant

 এ নিয়ে কি বলছেন প্রাণী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা?

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে দেশের চাহিদা পূরণে বাড়ছে (মৎস্য, ডেইরি ও পোলট্রি) বাণিজ্যিক খামার। তবে এসব খামারের বায়োসিকিউরিটি নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্ছে না। ফলে নানা রোগ-ব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে খামার। এসব রোগ প্রতিরোধের জন্য যেসব ওষুধ খাওয়ানো হচ্ছে বা ব্যবহার করা হচ্ছে, তারও প্রভাব পড়ছে খামারে উৎপাদিত মাংস, দুধ এবং ডিমে। এসব মানবদেহে প্রবেশ করে নানা রকমের রোগ তৈরি করছে। সংক্রামিত গবাদিপশুর সান্নিধ্যে বা সহচর্যে যাওয়া মানুষের শরীরেও সরাসরি ঢুকছে পশু রোগ।

অনেক ক্ষেত্রে অনেক খাদ্য, পানীয়জলের সংস্পর্শে আসছে অনেক পশু- পাখি। তাদের লালা থেকেও ছড়িয়ে পড়ছে নানা রোগ। এছাড়াও রয়েছে ট্রান্স বাউন্ডারি নানা প্রাণি রোগ। বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন দেশগুলোতে যাওয়া নানা প্রাণি স্কানিং না করেই প্রবেশ করছে দেশের অভ্যন্তরে। এসব প্রাণিদের থেকেও আমরা সংক্রামিত হচ্ছি।

পৃথিবীতে মানুষের শরীরে যত রোগ হচ্ছে তার ৭৫ শতাংশ রোগ হচ্ছে পশুদের থেকে। সাধারণত প্রাণির সহচর্যে আসার কারণেই নানা রোগ ছড়িয়েছে। জীবন জীবীকা হোক বা পোষ মানানোসহ নানা করণে মানুষ প্রাণিকুলের সহচর্যে আসছে।

জলবায়ুর পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে নতুন নতুন অনেক রোগ দেখা দিয়েছে। এসব রোগ এখন শুধু পশুতেই সীমাবদ্ধ থাকছে না। এসব পশুর মাংস, রক্ত, শ্বাস-প্রশ্বাসের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে পড়ছে মানবদেহে। এ থেকে মানুষকে রক্ষার জন্য ওয়ার্ল্ড এনিমেল হেলফ অর্গানাইজেশনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বিভিন্ন কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে কারিকুলাম তৈরি করা হচ্ছে।

বন্যপ্রাণির চিকিৎসার বিষয়টিও পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। অ্যানথ্রাক্স, রাণীক্ষেত, ক্ষুরা রোগ, যক্ষা, সোয়াইন ফ্লু, বার্ড ফ্লু, মার্স, সার্স, করোনাভাইরাস, জিকা ভাইরাস শক্তিশালী হয়ে মানুষের দেহে প্রবেশ করছে। প্রাণিরোগ মানুষের দেহে প্রবেশ করে তা মহামারি আকার ধারণ করছে। বর্তমানে করোনাভাইরাস সংক্রমণে বিশ্বে মহামারি আকার ধারণ করেছে। পরিবেশের তারতম্যের কারণে তা আবার নিজে নিজে বিবর্তিতও হচ্ছে।

কুকুরের কামড়ে জলাতঙ্ক রোগ হয় আমরা জানি। কিন্তু এ রোগে আক্রান্ত কুকুরের লালা যেখানে পড়বে সেখানে ২০-২৫ বছর পর্যন্ত সুপ্ত অবস্থায় থাকতে পারে। কেউ খালি পায়ে সে জায়গা দিয়ে গেলে (পায়ে ক্ষত বা কাটা থাকলে) সেও আক্রান্ত হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

fourteen + eleven =