কোল্ডড্রিঙ্কস খেয়ে নিজের সর্বনাশ ডেকে আনছেন না তো?

ছবি-প্রতীকী
This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

ভাল মন্দ খাওয়া পর এক বোতল কোল্ডড্রিঙ্ক না খেলে আত্মা তৃপ্ত হয় না! বেশি মাত্রায় কোল্ডড্রিঙ্কস গ্রহণ শরীরের জন্য ভালো না হলেও তা নিত্যদিন আমরা অনেকেই পান করেই থাকি।

 

This news is sponsored by STP Tax Consultant

 

জেনে নিন কোল্ডড্রিঙ্কস কতটা ক্ষতিকর-

দাঁতে ক্ষয়- কোকাকোলার উচ্চ এসিডিটি এবং চিনি দাঁতের উপর শক্ত আবরণ ও ক্ষত তৈরি করে। ভিটামিন স্বল্পতার কারণে আপনার ক্যালসিয়ামের পরিমাণ কমতে থাকে ফলে দাঁতের ভেতর ও বাইরে কালো দাগ পড়তে বেশিদিন লাগবে না।

ভিটামিন ঘাটতি- কোকাকোলা খাওয়ার দুই ঘণ্টা পর, কোকে ক্যাফেইনের সঙ্গে থাকা ফসফোরিক এসিড শরীর থেকে ভিটামিন ও পুষ্টি উপাদান দেহ থেকে বের করে দিতে শুরু করে (এটা প্রসাবের চাপ তৈরি করে। ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিংক যেগুলো অস্থিতে থাকে এবং সোডিয়াম পায়খানার সঙ্গে বেরিয়ে যায়)। প্রতিদিন কোকাকোলা খেলে এভাবেই ভিটামিন স্বল্পতা শুরু হয়।

উদ্বেগ- ঘুমের ঘাটতির সঙ্গে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসেবে উদ্বেগ বা দুশ্চিন্তা দেখা দিতে পারে। এক বোতল কোকে এক কাপ কফির সমপরিমাণ ক্যাফেইন থাকে। আর এটা যেহেতু আসক্তি তৈরি করে, আপনি ছাড়তে চাইলেও মাথা ব্যাথা, বিরক্তিভাব, ক্লান্তি, এমনকি হতাশা দেখা দিতে পারে।

স্থূলতা- কোক খাওয়ার ফলে আপনার ওজন যতটা বাড়বে, সেটা কোনো সমস্যা না হলেও এটা দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা, কার্ডিওভাস্কুলার সিস্টেম এবং অস্থি ও জয়েন্টের উপর চাপ বাড়িয়ে দেয়।

ত্বকের সমস্যা- ধূমপান করলে ত্বকের উপর যেমন প্রভাব পড়ে, রোজ কোক খেলেও ঠিক তেমনই প্রভাব পড়ে। উচ্চ মাত্রায় চিনির কারণে সোডা খাওয়ার ফলে শরীরে প্রদাহ বা জ্বালা দেখা দেয়। ত্বকের থেকে জল শুষে নেয় ফলে ছোট ছোট দাগ ও ভাঁজ পড়ে যায়। ত্বকের বয়স বৃদ্ধি বাড়িয়ে দেয় ফলে চামড়া ম্লান দেখায় ও ঝুলে পড়ে। আরও একজিমা, চুলকানি, এবং ব্রণের সম্ভাবনা বাড়িতে দেয়।

হার্ট ও রক্তের সমস্যা- খারাপ কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়ার ফলে হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা বেড়ে যায়। আপনি যদি দিনে এক বোতল কোকও খেয়ে থাকেন তবে আপনি ইতিমধ্যে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় আছেন। আর নারীরা যারা রোজ এক বোতল হলেও কোক খাচ্ছেন তাদের ডায়াবেটিস-২ হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি।

ক্যান্সারের ঝুঁকি- প্রতিদিন কোকাকোলা খেলে আপনার ক্যান্সার হবে, ঠিক এমনটা নয়। তবে, কোকে বেনজিন অণুর উপস্থিতি এবং প্ল্যাস্টিক প্যাকেজিং এর কার ক্যান্সারের ঝুঁকি এড়াতে, ডাক্তাররা সপ্তাহে এক বোতল কোক খাওয়ার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

কিডনি সমস্যা- আপনি যদি কোকের ডায়েট ভার্সনটা নিরাপদ মনে করে রোজ খেয়ে থাকেন তবে আপনি ভুল করছেন! এতে চিনি না থাকলেও যে কৃত্রিম মিষ্টিকারক থাকে, সেগুলো আপনার কিডনির জন্য খুবই ক্ষতিকর।

 

সূত্র: ব্রাইটসাইড

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

sixteen + 11 =