‘বর্ণবাদে’র অভিযোগেই কি ধারাভাষ্যে ইতি টানলেন ডেভিড লয়েড

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

শান্তি রায়চৌধুরী : ইয়র্কশায়ারের প্রাক্তন ক্রিকেটার আজিম রফিক সম্প্রতি তোলপাড় ফেলে দিয়েছিলেন ইংল্যান্ডের ক্রিকেটে। তাঁর বর্ণবাদের অভিযোগের তির বিঁধেছে ইংলিশ ক্রিকেটের অনেক রথী-মহারথীর বুকেই। শ্বেতাঙ্গ ক্রিকেটার ও কর্তাব্যক্তিদের বর্ণবাদী আচরণে তাঁর ক্রিকেট ক্যারিয়ারই ধ্বংস হয়ে গেছে বলে অভিযোগ ছিল আজিম রফিকের।

আজিম রফিকের অভিযুক্ত ব্যক্তিদের তালিকায় আছেন প্রাক্তন ইংলিশ ক্রিকেটার মাইকেল ভন, গ্যারি ব্যালান্সরা। এমনকি তিনি অভিযোগ তুলেছেন প্রাক্তন ইংলিশ ক্রিকেটার, ইংল্যান্ডের প্রাক্তন কোচ ও জনপ্রিয় ধারাভাষ্যকার ডেভিড লয়েডের বিরুদ্ধেও। সেই লয়েডই গতকাল এক টুইটে ধারাভাষ্য থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। হঠাৎ করেই লয়েডের এই অবসর ঘোষণার পেছনের কারণ কি তবে আজিম রফিক!

This news is sponsored by STP Tax Consultant

আজিম রফিকের এসব অভিযোগ নিয়ে তদন্ত করছে ব্রিটিশ সাংসদদের নিয়ে গড়া একটি সংসদীয় কমিটি। ইয়র্কশায়ার কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাবের চেয়ারম্যান রজার হাটন থেকে শুরু করে ইংলিশ ও ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের (ইসিবি) প্রধান নির্বাহী টম হ্যারিসনকেও হাজিরা দিতে হয়েছে সে কমিটির সামনে। ভন তো এরই মধ্যে হারিয়েছেন বিবিসির ক্রিকেট বিশেষজ্ঞের চাকরি। লয়েড অবশ্য ক্ষমা চেয়েছিলেন আজিমের কাছে। আজিমের অভিযোগ ছিল লয়েড তাঁর সহধারাভাষ্যকারদের কাছে মুঠোফোনে এশিয়ান ক্রিকেটারদের নিয়ে মন্তব্য করে খুদে বার্তা পাঠিয়েছিলেন। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, ‘ক্লাব হাউস একটা ক্রিকেট ক্লাবের প্রাণ। কিন্তু এশিয়ান ক্রিকেটাররা সেখানে যান না।’

লয়েডের ধারাভাষ্য থেকে সরে যাওয়ার সঙ্গে অনেকেই এই অভিযোগের যোগসূত্র খুঁজে পাচ্ছেন। তিনি নিজে অবশ্য টুইটারে আজিমের অভিযোগ নিয়ে কিছু বলেননি। কারণ হিসেবে বলেছেন ধারাভাষ্যকক্ষে নিজেকে ‘একা’ লাগার বিষয়টি। স্কাই স্পোর্টসে তাঁর সহধারাভাষ্যকারদের অনেকেই কাজটা ছেড়ে দিয়েছেন। তাঁদের মধ্যে আছেন ডেভিড গাওয়ার, মাইকেল হোল্ডিং ও ইয়ান বোথাম। লয়েডের আরেক বিখ্যাত সহধারাভাষ্যকার বব উইলিস তো দুনিয়া ছেড়েই চলে গেছেন, দুই বছর হয়ে গেল। ধারাভাষ্যকক্ষে নিজেকে বড্ড একা লাগছিল বলেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, জানিয়েছেন লয়েড।

লয়েড লিখেছেন, ‘আমি মনে করি, মাইক্রোফোন ছেড়ে দেওয়ার এখনই সঠিক সময়। যে খেলাকে আমি ভালোবাসি, সেটি মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করে গেছি, সেটি বিশাল একটি ব্যাপার।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

17 − 10 =