নতুন বছর শুরুর দিনেই মর্মান্তিক ঘটনা, কৈখালিতে রঙের কারখানায় বিধ্বংসী আগুন

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

নতুন বছর শুরুর দিনেই মর্মান্তিক ঘটনা। পুড়ে গেল কৈখালির রঙের কারখানা। রাসায়নিক থাকায় ক্রমেই ছড়িয়ে পড়ছে আগুন। কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে এলাকা। ঘটনাস্থলে দমকলের  ১৫টি ইঞ্জিন। বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীও ওই রং কারখানায় পৌঁছেছে। যুদ্ধকালীন তৎপরতায় চলছে আগুন নেভানোর কাজ। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন বিধায়ক অদিতি মুন্সি। রঙের কারখানা থেকে ওই আগুন পাশের কারখানাতেও ছড়িয়ে পড়ে বলে স্থানীয়দের দাবি। দাহ্য পদার্থ থাকায় আগুন ছড়ানোর আশঙ্কা আরও বাড়ছে। কেমিক্যাল ফ্যাক্টরি পরিস্থিতি বাগে আনা কিছুটা কঠিন হচ্ছে। দমকলের প্রাথমিক অনুমান শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগেছে। পাশেই রয়েছে বাচ্চাদের পোশাক তৈরির কারখানা। আগুনের লেলিহান শিখা সেই কারখানাকেও গ্রাস করেছে।

স্থানীয়রা জানান, সেখানে বেশ কিছু দাহ্যবস্তু বোঝাই ড্রাম ছিল। আগুন লাগার পর বীভৎস শব্দে সেগুলি ফাটতে শুরু করে। এর জেরে দমকল কর্মীদের কাজ করতেই সাময়িক বেগ পেতে হয়। তাৎপর্যপূর্ণভাবে যেখানে আগুন লেগেছে, সেই এলাকা অত্যন্ত ঘিঞ্জি। জায়গা খুবই সঙ্কীর্ণ। এর ফলে দমকলের ফায়ার টেন্ডারগুলি ঢুকতেও সমস্যার মুখে পড়ে।

This news is sponsored by STP Tax Consultant

বিধায়ক অদিতি মুন্সী ঘটনাস্থলে পৌঁছন। অদিতি মুন্সী বলেন, “অনেকটাই আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। দমকল বাহিনী যুদ্ধকালীন তৎপরতায় কাজ করছে। আশা করা যায় কিছুক্ষণের মধ্যে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পারব। কী থেকে আগুন লাগল তা এখনও নিশ্চিত করা যায়নি। খতিয়ে দেখা হচ্ছে। যা যা ব্যবস্থা নেওয়া দরকার এই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসে গেলে তার চেষ্টা করব। এটা বসতি এলাকা। বহু বাড়ি রয়েছে আশেপাশে। এই ঘটনার যাতে পুনরাবৃত্তি না হয় তার জন্য যে যে ব্যবস্থা নেওয়া যায় আমরা তা করব।”

কারখানার পাশেই দমদম বিমানবন্দরের পাঁচিল। বিমানবন্দর সূত্রে খবর, অগ্নিকাণ্ডের ফলে বিমান ওঠানামা ব্যাহত হয়নি। তবে বিমানবন্দর থাকায় বাড়তি সতর্কতা নেওয়া হচ্ছে। বিমানবন্দরের হ্যাঙ্গার থেকে সরানো হচ্ছে বিমান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

2 × one =