চরম অমানবিকতার নিদর্শন! টানা ৬ ঘণ্টা অপেক্ষার পরও বেড মিলল না মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজে

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

শর্মিষ্ঠা চ্যাটার্জী: রেফার যন্ত্রণার শিকার এক প্রসূতিকে ফেরাল হাসপাতাল। এমনই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ মিলেছে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বিরুদ্ধে। গর্ভস্থ সন্তান মৃত হওয়ার কারনে সারাদিন ধরে ছোটাছোটির পরও একটি শয্যাও মিলল না।

 

This news is sponsored by STP Tax Consultant

 

প্রসূতির নাম মমতা রানা। খড়গপুরের পালঝারি এলাকার ২৩ বছরের গৃহবধু। বৃহস্পতিবার হঠাৎই গর্ভের সন্তানের কোনো সাড়া না পাওয়ায় রাতেই খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়। প্রসূতির আল্ট্রাসোনোগ্রাফি করে দেখা যায় মমতা দেবীর গর্ভের সন্তান মৃত। জরুরী অপারেশনের প্রয়োজন বলে হাসপাতালের তরফে জানালেও, পরিকাঠামো নেই বলে রোগীকে ফিরিয়ে দেয় তারা। শনিবার সকালে মাতৃযানে করে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা হল রিপোর্ট দেখে চিকিৎসকরা সাফ জানিয়ে দেন, ভর্তি নেওয়া হবেনা প্রসূতিকে। বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শও দেন চিকিৎসকরা। দীর্ঘক্ষণ কাকুতি মিনতি করলে প্রায় ৬ ঘণ্টা ধরে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজের মাতৃমা ভবনের সামনে প্রসূতির পরিবার বসে থাকেন।

পরিবারের লোকজন ভেবে দিশেহারা হয়ে পরিবারের লোকজন আবার প্রসূতিকে খড়গপুর মহকুমা হাসপাতালের দিকেই নিয়ে যায়। কিন্তু আদৌ সেখানে অপারেশন হবে কিনা তাই নিয়ে কিছুই জানেনা।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রেফার রোগী সম্পর্কে কড়া নির্দেশের পরও এমন রোগী ফেরানোর ঘটনায় প্রশ্ন উঠেছে। কুলুপ এঁটেছে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশেও যে অবস্থার উন্নতি ঘটেনি তা এই ঘটনায় স্পষ্ট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

17 + 8 =