অন্বেষার গানে ‘আদুরে চিঠি’, পৌঁছে যাবে স্মৃতির হাত ধরে ভালোবাসার ঠিকানায়

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

বরুন দাস: ধরা যাক আপনি একটা চিঠি লিখলেন আপনার মনের মানুষকে পাঠানোর জন্য, কিন্তু সেগুলো আর পাঠানো হয়ে উঠলো না, পরে রইলো চিঠির বাক্সে। অনেক দিন বাদে যখন সেই চিঠিগুলো পড়বেন, তখন মনের কোনে লুকিয়ে থাকা আবেগ ফিরে আসবে।

 

This news is sponsored by STP Tax Consultant

 

এমন ই এক ভালোবাসার স্মৃতিকে ফিরিয়ে দিতে জোনাই সিং এবং জেএস ইভেন্টস এর উদ্যোগে প্রকাশিত হল নতুন মিউজিক্যাল ভিডিও ‘আদুরে চিঠি’

 

গান টি গেয়েছে অত্যন্ত জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী অন্বেষা দত্ত গুপ্ত, যিনি একাধারে গীতিকার, সুরকার আবার কম্পোজার ও।

অন্বেষা

‘আদুরে চিঠি’ প্রিয় স্মৃতির সংগ্রহ ছাড়া আর কিছুই নয়। গানটি রোমান্স, স্নেহ, আনন্দ, দুর্বলতা এবং মা প্রকৃতির সাথে তাদের সংযোগের অভিজ্ঞতা বুনেছে। ‘আদুরে চিঠি’-র মিউজিক প্রোডাকশন এর দায়িত্বে রয়েছেন অক্ষয় মেনন, মিক্সিং এবং মাস্টারিং করেছেন অত্যন্ত প্রতিভাবান সাউন্ড ইঞ্জিনিয়র রুপজ্জল মজুমদার। 

উচ্চাকাঙ্ক্ষী তরুণ অভিনেতা রোশনি সিং এবং অ্যাডাম শওকত কে নিয়ে মিউজিক ভিডিওটি আংশিকভাবে চিত্রায়িত হয়েছে নিউইয়র্কে।

 

রোশনি নিউ স্কুলে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্সে তার মাস্টার্স করছে এবং অ্যাডাম ইয়েল স্কুল অফ ড্রামা-তে বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ অ্যাক্টিং স্কুলে MFA-এর শেষ বছরে পড়ছে। এই মিউজিক ভিডিওটির ইউনিক পার্ট হলো, বাংলা গানের কথা অনুবাদ করা হয়েছে এবং ব্যাখ্যা করা হয়েছে দুই আমেরিকান জন্মগ্রহণকারী তরুণ অভিনেতাকে। তারা তাদের বোধগম্যতা অনুযায়ী সূক্ষ্মতাকে ব্যাখ্যা করে এবং আবেগ দেয় এবং গানটির মূল ভাব কে সুন্দর ভাবে তুলে ধরেছে।

 

অন্বেষা জানালেন, “যখন জোনাই দি সহযোগিতার জন্য আমার সাথে যোগাযোগ করেছিলেন, তখন আমি একজন গায়ক গীতিকার এবং সুরকার হিসাবে যুক্ত হওয়ায় আমি আরও বেশি খুশি হয়েছিলাম। তার সঙ্গীত লেবেল, জেএসই মিউজিক স্বাধীন সঙ্গীত প্রকাশের উদ্দেশ্য নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছে এবং এটি শিল্পীদের জন্য খুবই শক্তিশালী এই যুগ। সে আমার স্টাইলে একটি গান চেয়েছিল এবং আমি এমন একটি জনারে একটি গান করেছি যেটা আমাকে খুব তৃপ্তি দিয়েছে। অডিও এবং ভিডিও উভয় ক্ষেত্রেই পিয়ানো প্রাধান্য পায়। এবং এটি আমাকে সেই সুন্দর মিউজিক ভিডিওতে নিয়ে আসে যা আমরা গানটির জন্য শ্যুট করেছি। কিছু অংশগুলির শুটিং নিউইয়র্কে হয়েছে এবং এই সংমিশ্রণটি আমার মনে হয় একটি ভিজ্যুয়াল ট্রিট হবে”। 

 

মিউজিক ভিডিওর ভাবনা এবং ক্রিয়েটিভ ডিরেক্টর জোনাই সিং জানালেন, “একটি মোমবাতি জ্বালিয়ে কনসার্টে একজন পারফর্মিং আর্টিস্ট হিসেবে একটি গ্র্যান্ড পিয়ানোতে অন্বেষাকে সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। একজন প্রবাসী বাঙালি হওয়ায় নিউইয়র্ক আমার কাছে কলকাতার মতোই একটি বাড়ি। যদিও এই প্রবাসী হুগলি থেকে হাডসন ভ্রমণ করেছিলেন, আমি সেতুকে পিছনে ফেলে যেতে পারিনি। এই মিউজিক ভিডিওতে, ঐতিহাসিক ব্রুকলিন ব্রিজে রোম্যান্স শুরু হয়। আমাকে রোশনি এবং অ্যাডামকে তাদের লিঙ্গোতে গানের বাংলা সংবেদনশীলতা জানাতে হয়েছিল, যাতে তারা এটিকে আন্তরিকভাবে উপলব্ধি করতে এবং চিত্রিত করতে পারে।  এটির প্রতি তাদের অন্তর্নিহিত উপলব্ধি, সৃজনশীল প্রক্রিয়ায় একটি সতেজতা দিয়েছে।”

 


 

 

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

thirteen + five =