ভারতীয় ক্রিকেটে একসময়ের সব থেকে কাছের দুটি মানুষ কোহেলি ও শাস্ত্রী নাকি ভিন্ন মেরুতে অবস্থান করছেন

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

শান্তি রায়চৌধুরী: এই তো কিছু দিন আগে দুই জনের মধ্যে মধুর সম্পর্ক ছিল। শোনা যাচ্ছে আজ সেই মধুর সম্পর্ক অন্ধকারে। খবর পাওয়া গেছে, ভারতের টেস্ট অধিনায়ক বিরাট কোহলি আর সদ্য প্রাক্তন হওয়া ভারতীয় কোচ রবি শাস্ত্রীর সম্পর্কে চিড় ধরেছে। অথচ, দ্বিতীয় মেয়াদে শাস্ত্রীর কোচ হওয়ার পেছনে প্রকাশ্য সমর্থন ছিল কোহলির। দুজনের মিলে ভারতীয় ক্রিকেট দলের জন্য অনেক সাফল্যও এনেছেন। অথচ এখন কোহলির সাথে দূরত্ব বাড়েছে শাস্ত্রীর। বর্তমানে নাকি দু’জনের প্রায় মুখ দেখাদেখি বন্ধ। ভারতীয় ক্রিকেটে এক সময়ের সব থেকে কাছের দুটি মানুষ এখন নাকি ভিন্ন মেরুতে অবস্থান করছেন। বিসিসিআই সূত্রে খবর, প্রাক্তন ভারতীয় কোচের সাথে কোহলির সম্পর্ক তলানিতে এসে পৌঁছেছে। ফোনেও তাদের মধ্যে কথাবার্তা রীতিমতো এই চাঞ্চল্যকর খবর এখন প্রকাশ্যে।

নিউজ এইট্টিন বাংলাকে বিসিসিআইয়ের সূত্র থেকে নিউজটি কনফার্ম করা হয়েছে। বলা হচ্ছে এই সমস্যার সূত্রপাত নাকি প্রায় ছয় মাস আগে। ভারতীয় প্রথম একাদশ নির্বাচন নিয়ে নাকি বিরাটের সাথে শাস্ত্রীর মতপার্থক্য তৈরি হয়। সূত্রের দাবি, এমনকি রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে খেলানো কিংবা বাদ দেয়া প্রসঙ্গে এই অভিন্নহৃদয় দুই ব্যক্তির মধ্যে নাকি কথা কাটাকাটি হয়। আসলে বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা ছিল, সৌরভবিরোধী মন্তব্য করার পিছনে হয়তো বিরাটকে প্রশ্রয় দিয়েছেন রবি শাস্ত্রীই। অতীতেও রবি শাস্ত্রীর সাথে সৌরভের সম্পর্ক খুব একটা ভালো ছিল না। সপ্তাহ খানেক আগেও তিনি নাম না করে বোর্ড সভাপতির সমালোচনা করেছেন। তাই অনেকের ধারণা ছিল বিরাটকে সমর্থন করছেন রবি শাস্ত্রী। তবে এই খবর খুঁজতে গিয়ে উঠে এলো ভারতীয় ক্রিকেটের আরো একটি বিস্ফোরক তথ্য।

This news is sponsored by STP Tax Consultant

বিরাটের সমর্থনে রবি শাস্ত্রী নেই। উল্টা তাদের দু’জনের মধ্যে সম্পর্ক অনেকটাই খারাপ হয়েছে। বোর্ড সূত্রের আরো দাবি, বিরাট কেন সৌরভবিরোধী মন্তব্য করলেন রবি শাস্ত্রীও বুঝে উঠতে পারছেন না। আসলে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর নাকি একটি ভিডিও কনফারেন্স আয়োজন হয়েছিল। সেখানে বিরাট, সৌরভ ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন রবি শাস্ত্রী ও বিসিসিআই কর্মকর্তা এবং নির্বাচকরা। সেখানেই নাকি বিরাটকে স্পষ্ট করে জানিয়ে দেয়া হয় সাদা বলে ক্রিকেটে দু’রকম অধিনায়ক রাখা সম্ভব হবে না বোর্ডের।

কোহলিকে তারা একদিনের নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দিচ্ছেন। এই ঘটনার সাক্ষী ছিলেন রবি শাস্ত্রী। তাই বিরাট কোহলি যে তথ্য সামনে আনছেন তা একেবারেই ঠিক নয় বলে মনে করছেন প্রাক্তন কোচ। যদিও প্রকাশ্যে সংবাদ মাধ্যমে কোনো মন্তব্য এখনো করেননি রবি শাস্ত্রী।

অন্যদিকে আরেকটি মহলের ধারণা বিসিসিআইয়ের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ করতে চান না শাস্ত্রী। তাই নাকি বিরাটের পাশে দাঁড়াচ্ছে না। তবে এ কথা ঠিক সত্যিই ড্রেসিংরুমে বিরাটের কিছু কিছু বিষয় মেনে নিতে নাকি পারছিলেন রবি শাস্ত্রী। বেশ কিছু বিষয় নিয়ে মতপার্থক্য হতো।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

4 × one =