কাঁকরতলা পুলিশের তৎপরতায় নিখোঁজ নাবালিকাকে উদ্ধার করে তুলে দেওয়া হয় বিহার পুলিশের হাতে

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

নিশির কুমার হাজরা, বীরভূম: বীরভূম জেলার কাঁকরতলা পুলিশের তীক্ষ্ণ দৃষ্টি, জনসংযোগ এবং বিস্তৃত জালে আটকে পড়ল প্রতারনার ফাঁদে পা দেওয়া নাবালিকা সহ অভিযুক্ত যুবক।

 

This news is sponsored by STP Tax Consultant

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে বিহার, রাজ্যের বাঁকা জেলার চন্দন থানা এলাকার নাবালিকা সঞ্জু কুমারীকে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে ফুসলিয়ে বীরভূমে নিয়ে চলে আসে নরেশ দাস। অভিযুক্ত ব্যক্তি ঝাড়খণ্ড রাজ্যের জারমুন্ডি থানার ধামনা গ্রামের বাসিন্দা।গাড়ি ড্রাইভার হিসেবে ঝাড়খণ্ড থেকে বিহার নিয়মিত গাড়ি নিয়ে যাতায়াত ছিল,সেখান থেকে প্রেমের ফাঁদে পড়ে বাড়ি ছেড়ে বীরভূম জেলার কাঁকরতলা থানার হজরতপুরে অস্থায়ী বাড়িতে ওঠে এবং স্থানীয় এক ইঁট ভাটায় ইঁট তোলার কাজে যুক্ত হয়ে পড়ে।

নাবালিকার মাথায় সিন্দুর দেখে অন্যন্যরা সন্দেহের চোখে দেখতে থাকে এবং কানাঘুষা চলতে থাকে।ইতিমধ্যে কাঁকরতলা থানার পুলিশ গোপন সূত্রে খবর পেয়ে একযোগে ইঁট ভাটায় ও বাড়িতে হানা দিয়ে দুজন কে থানায় নিয়ে আসে।

কাঁকরতলা থানার ওসি জহিদুল ইসলাম তাদের সাথে কথা বলে সমস্ত তথ্য জেনে নিয়ে বিহার ও ঝাড়খণ্ড রাজ্যের উক্ত দুই থানার আধিকারিকদের সাথে যোগাযোগ করেন। সেখান থেকে জানতে পারেন নরেশ দাস বিবাহিত এবং তার স্ত্রী স্থানীয় থানায় স্বামীর নিঁখোজ অভিযোগ করে, সেই সাথে অন্য কোনও মহিলাকে বিয়ের আশঙ্কা প্রকাশ করে।

 

অন্যদিকে নাবালিকার পরিবারের পক্ষ থেকেও নিখোঁজের অভিযোগ করেন তাদের স্থানীয় থানায়। রবিবার বিহার রাজ্যের নন্দন থানা থেকে আগত আধিকারিকের কাছে কাঁকরতলা পুলিশের হাতে ধৃত নরেশ দাস ও নিঁখোজ থাকা নাবালিকা সঞ্জু কুমারীকে (১৪ বছর) তুলে দেওয়া হয়।

কাঁকরতলা পুলিশের অতি তৎপরতায় অভিযুক্ত সহ নিখোঁজ নাবালিকাকে উদ্ধার কাজের জন্য বিহার পুলিশের পক্ষ থেকে সাধুবাদ ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

three × 5 =