উন্নয়নের জোয়ার, মণিপুরে ২২টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

২০১৪ সালে ক্ষমতায় আসার পর দিল্লি ও কেন্দ্রীয় সরকারকে আপনাদের দুয়ারে নিয়ে এসেছি।উত্তর পূর্ব ভারত সফরে গিয়ে মণিপুরবাসীকে বললেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মঙ্গলবার তিনি মণিপুরে ৪৮০০ কোটি টাকা খরচে মোট ২২টি প্রকল্পের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন। ত্রিপুরার আগরতলায় মহারাজা বীর বিক্রম বিমানবন্দরের নতুন টার্মিনাল ভবনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ দিন, ১ হাজার ৭০০ কোটি টাকা ব্যয়ে তৈরি হতে চলা পাঁচটি জাতীয় সড়ক প্রকল্পের শিলান্যাস করেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। জাতীয় সড়কের শিলান্যাসের পাশাপাশি মোবাইল পরিষেবা আরও উন্নত করার লক্ষ্যে ১ হাজার ১০০ কোটি টাকা ব্যয়ে তৈরি ২ হাজার ৩৫০ টি মোবাইল টাওয়ারেরও উদ্বোধন করেন তিনি।
তিনি বলেন, “আমি বিমানবন্দর থেকে এখানে এসেছি, মানুষ আমাকে আশীর্বাদ করেছে। ডাবল ইঞ্জিনের সরকারের সঙ্গে দ্বিগুণ উন্নয়ন করে এই ভালোবাসা ফিরিয়ে দেব।”

মণিপুরে ২২টি উন্নয়নমূলক প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন ও উদ্বোধনের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বিজেপি(BJP)-কে ভোট দেওয়ার জন্য এবং একটি স্থিতিশীল সরকার গঠনের জন্য রাজ্যবাসীকেই ধন্যবাদ জানান।প্রধানমন্ত্রী মোদী এদিন ত্রিপুরায় মুখ্যমন্ত্রী ত্রিপুরা গ্রাম সমৃদ্ধি যোজনা এবং বিদ্যাজ্যোতি স্কুল প্রকল্প মিশনও চালু করেন। মোদী বললেন- “আমি বিমানবন্দর থেকে এসেছি, দেখছিলাম। পথে সবাই অভিনন্দন জানাচ্ছিলেন। আমি ডাবল ইঞ্জিনের শক্তি অনুসারে ডাবল সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের সঙ্গে আপনাদের এই ভালবাসা ফিরিয়ে দেব। আমি বিশ্বাস করি. ত্রিপুরার জনগণ আমাদের প্রতি যে ভালোবাসা ও স্নেহ দিয়েছেন তা ভবিষ্যতেও পাওয়া যাবে।” মোদি আরও বলেন, “ডাবল ইঞ্জিন সরকার ডাবল ফাস্ট কাজ করছে।”
তিনি আরও বলেন, “সাধারণ মানুষের ভোটের কারণেই মণিপুরের ১ লক্ষ ৩০ হাজারেরও বেশি পরিবার বিনামূল্যে বিদ্য়ুৎ পরিষেবা পাচ্ছে এবং ৩০ হাজার পরিবার নিজস্ব শৌচাগার পেয়েছে।”

This news is sponsored by STP Tax Consultant

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যখন এমন একটি সরকার থাকে যা কেন্দ্রে এবং রাজ্যে উন্নয়নকে সর্বাগ্রে রাখে, তখন কাজ দ্বিগুণ দ্রুত হয়। তাই ডাবল ইঞ্জিনের সরকারের কোনও বিকল্প নেই। ডাবল ইঞ্জিনের সরকার মানে সম্পদের সঠিক ব্যবহার। মানে অনেক সংবেদনশীলতা। ডাবল ইঞ্জিন সরকার, অর্থাৎ জনগণের ক্ষমতার প্রচার। ডাবল ইঞ্জিন সরকার মানেই সেবা, নিষ্ঠা। অর্থাৎ সংকল্পের পূর্ণতা। ডাবল ইঞ্জিন সরকার অর্থাৎ সমৃদ্ধির দিকে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা।”

বিরোধী দলগুলিকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “আগের সরকারগুলির একটাই নীতি ছিল যে উত্তরের দিকে নজর দিও না। কিন্তু আমরা এসে উত্তর পূর্ব ভারতের উন্নতির লক্ষ্যে নীতি গ্রহণ ও কাজ শুরু করেছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

twenty + seven =