তৃণমূল যুব নেত্রী সায়নী ঘোষকে থানায় নিয়ে গেল ত্রিপুরা পুলিশ

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

তৃণমূল যুব নেত্রী সায়নী ঘোষকে থানায় নিয়ে গেল ত্রিপুরা পুলিশ। তাঁর বিরুদ্ধে ‘‌হিট অ্যান্ড রান’‌–এর অভিযোগ আনা হয়েছে। পুর নির্বাচনের প্রচারে কয়েকদিন ধরেই ত্রিপুরাতে রয়েছেন পশ্চিমবঙ্গ তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভানেত্রী সায়নী ঘোষ সহ তৃণমূল নেতৃত্ব। ত্রিপুরা পুলিশের দাবি, শনিবার রাতে সায়নী ঘোষের গাড়ির ধাক্কায় একজন আহত হয়েছেন। সেই সূত্রেই তাঁকে খুঁজতে হোটেলে হাজির হয় পুলিশ। সায়নী সহ বাকি তৃণমূল নেতারা সেখানেই পুলিশের সঙ্গে কথা বলেন। কিন্তু তাতে সমস্যা মেটেনি।

আগরতলার যে হোটেলে সায়নী সহ তৃণমূলের অন্যান্য নেতারা রয়েছেন সেখানে রবিবার হানা দেয় আগরতলা থানার পুলিশ। তাদের অভিযোগ সায়নী ঘোষের গাড়ি ধাক্কা মেরেছে এক ব্যক্তিকে। এছারাও সভায় কুরুচিকর মন্তব্য করার অভিযোগও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। সায়নীর সঙ্গে কথা বলে তাঁকে থানায় নিয়ে যেতে চায় পুলিশ। কুণাল ঘোষ বাধা দিয়ে বলেন কোনও মহিলাকে এইভাবে বিনা নোটিশে তুলে নিয়ে যাওয়া যায় না। পুলিশ সেই নোটিশ দেখাতে না পারায় কুণাল জানিয়ে দেন যে সায়নীকে নিয়ে পরে থানায় যাবেন তৃণমূল নেতৃত্ব।
তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেন, পুলিশ কোন অভিয়োগে সায়নী ঘোষকে থানায় তলব করেছে, তা জানাতে পারেনি। তবু পুলিশের অনুরোধ মেনে সৌজন্যের খাতিকরে সায়নী থানায় যাবেন। অদ্যাবধি পরেই ত্রিপুরার আগরতলায় মহিলা থানায় যান সায়নী। সঙ্গে যান কুণাল ঘোষ, সুস্মিতা দেব ও সুবল ভৌমিকও।

This news is sponsored by STP Tax Consultant

আগরতলা মহিলা থানায় পুলিশের সঙ্গে বাকযুদ্ধে জড়িয়ে পড়েন কুণাল-সায়নীরা। তাঁরা জানতে চান, কেন সায়নীকে তলব করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে সায়নীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। কিন্তু কেন, তার কোনও উত্তর মেলেনি বলে জানিয়েছেন তৃণমূল সাংসদ সুস্মিতা দেব। কুণাল ঘোষ বলেন, বিজেপি সরকারের রাজনৈতিক দেউলিয়াপনা প্রকট হয়ে উঠছে, তার প্রমাণ এই তলব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

4 × 4 =