দীঘায় ট্রলারডুবির ঘটনায় উদ্ধার ১২ জন মৎসজীবী

This News is Presented by Shyam Sundar Jewellers

শর্মিষ্ঠা চ্যাটার্জী: দীঘায় মোহনার কাছে ধাক্কা লেগে ডুবে গেলো ১২ জন মৎসজীবী সহ একটি ট্রলার। ওই ট্রলারটিতে প্রায় ৫ লাখ টাকার মাছ ছিল। মঙ্গলবার এই ঘটনায় রীতিমতো শোরগোল পড়ে গেছে দীঘায় মৎস্যজীবীদের মধ্যে। ১২ জন মৎস্যজীবীদের উদ্ধার করা গেলেও এত মূল্যের মাছ হাতছাড়া হয়ে গিয়েছে।

 

This news is sponsored by STP Tax Consultant

নন্দীগ্রামের বাসিন্দা বকুল কুমার জগতময়ী ট্রলার নিয়ে প্রায় ৪ দিন আগে ১২ জন মৎস্যজীবীদের সাথে নিয়ে দীঘায় গিয়েছিলেন।ওইদিনই ভোর ৫ টা নাগাদ মোহনার কাছে ধাক্কায় ট্রলারটি ডুবে যায়। ওই ট্রলারে থাকা মৎস্যজীবীদের উদ্ধার করা গেলেও মাছ গুলো উদ্ধার করা যায়নি। বকুল বাবুদের শংকরপুরে রাখা হয়েছে। এই দুর্ঘটনার জন্য তিনি স্থানীয় প্রশাসনকেই দায়ী করেছেন। তাঁর দাবি , দীঘা মোহনায় দীর্ঘদিন ড্রেজিং না হওয়ায় নাব্যতা কমে যাওয়ার ফলেই ট্রলার ডুবে যায়।

দীঘা ফিশারম্যান ও ফিশ ট্রেডার্স অ্যাসোসিয়েশন এর সম্পাদক শ্যামসুন্দর দাস বলেন , দীর্ঘদিন যাবত ড্রেজিং করার আবেদন জানানো হলেও , ড্রেজিং হয়না দীঘার মোহনায়। যার কারণে প্রতি বছরই এরম ট্রলার, লঞ্চ ডুবির ঘটনা ঘটছে।নন্দীগ্রামের বকুল দাসের ঘটনায় উনি বলেন, ‘একে ডিজেলের দাম ঊর্ধ্বমুখী। মৎস্যজীবীরা সংকটে রয়েছেন।এর ওপর সাড়ে ৫ লাখ টাকার মাছ সহ ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটলো। ট্রলারটি উদ্ধার হলেও একেবারে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যাবে। আর উনি এবছর ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

19 − 14 =